Home / স্থানীয় খবর / শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়মই নিয়ম!

শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়মই নিয়ম!

শেরপুর নিউজ ২৪ ডট নেটঃ বগুড়ার শেরপুর উপজেলার একমাত্র সরকারি হাসপাতাল শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ এখন অনিয়মই যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। এ নিয়ে সাপ্তাহিক আজকের শেরপুর পত্রিকা সহ বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় সংবাদ পরিবেশিত হলেও অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি। বরঞ্চ কেউ কেউ দম্ভোক্তি করে বলেছেন, পত্রিকায় লিখে কিছুই হবে না।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, বগুড়ার শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি একটি সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। যে কারণে হাসপাতালের কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা ভেঙ্গে পড়লেও সেদিকে কারও দৃষ্টি নেই। দিন দিন সেবার মান নিন্মুমুখী হলেও হাসপাতাল কৃর্তপরে কুম্ভকর্ণের ঘুম এখনো ভাঙ্গেনি।
সরেজমিন হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, জরুরী বিভাগে অধিকাংশ সময়ে নির্ধারিত ডাক্তারের পরিবর্তে উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার (স্যাকমো) ডাক্তারের চেয়ারে বসেন। সেখানে আগত জরুরী রোগীদের নামমাত্র সেবাও দেয়া হয় না। সাধারণ কাটা ফাটা রোগীদেরও বলা হয় বগুড়া মেডিক্যালে যেতে হবে।
রোগীদের অভিযোগ, বহিঃ বিভাগে তো নয়ই, জরুরী বিভাগেও ডাক্তার থাকেন না। তাদের শরীরে ডাক্তারের পোশাক না থাকায় কে ডাক্তার কে নার্স বোঝা যায় না। সেখানে প্রয়োজনীয় ঔষধপত্র, গজ, ব্যান্ডিজ দেয়া হয় না। রোগীর লোকজনকে বলা হয়, ‘বাইরে থেকে কিনে আনেন।’ এমনকি জরুরী বিভাগে সেবা নিতে আসা রোগীদের হয়রানি করা হয়। টাকা না দিলে সেলাই করা হয় না কিংবা সেলাই কাটাও হয় না। আর জরুরী বিভাগে নিয়মিত রোগী দেখার পরির্বতে ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধির সাথে সাাতে ব্যস্ত থাকেন কতিপয় ডাক্তার। ফলে সাধারণ রোগীরা জরুরী বিভাগে গিয়ে পাত্তা পান না। জরুরী বিভাগের এক কর্মচারী দীর্ঘদিন যাবত হাসপাতালে চাকুরীর সুবাধে অনিয়মকেই নিয়ম করে তুলেছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, হাসপাতালে নির্ধারিত ডিউটি না করে অন্যান্য েেত্র প্রভাব খাটানোর। এছাড়া জরুরী বিভাগের জন্য নির্ধারিত ঔষধপত্র বাইরে বিক্রি, হাসপাতালের গাছ বিক্রি, খাবারে অনিয়ম সহ নানা দুর্নীতির সাথেই তিনি জড়িত বলে সুত্রটির দাবী। হাসপাতালের ওই কর্মচারীর দাপটে অনেকে কর্মকর্তা ও কর্মচারীই কথা বলার সাহস পান না। নিজের কাজে ফাঁকি দিয়ে অন্যের দোষ ধরা, হাসপাতালের বাসভবন অবৈধভাবে ব্যবহার, কর্মচারীদের বেতন ফাইল আটকিয়ে অর্থ আদায় সহ তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে।
এদিকে শেরপুর উপজেলা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা হিসাবে ডা. আব্দুল কাদের যোগদানের পর থেকেই ওই সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন বলে সুত্রটির দাবী।
শনিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে গিয়ে দেখা গেছে, জরুরী বিভাগে রোগী দেখছেন স্যাকমো গোলাম মোস্তফা। হাসপাতালের বর্হি ভাগে শত শত রোগী থাকলেও একজন এমবিবিএস ডাক্তারও নেই। জরুরী বিভাগে ডাক্তারদের ডিউটি রোষ্টার ঝুলানো নেই। নিয়ম অনুযায়ী কর্মরত চিকিৎসকদের ডিউটি তালিকা প্রকাশ্যে ঝুলানোর নিয়ম থাকলেও তা দেখা যায় নি। হাসপাতাল ক্যাম্পাসের ভিতরই নিয়ম বর্হিভুত ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিরা ঘোরাফেরা করছে। ফলে বিব্রত হচ্ছে রোগী ও তার আত্মীয়স্বজনেরা। এসব জানানোর জন্য ডা. আব্দুল কাদের সাথে এর যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

Check Also

শেরপুরে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় জরিমানা

শেরপুরনিউজ২৪ডটনেটঃ করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি না মানা এবং সরকারি নিদের্শনা অমান্য করায় বগুড়ার শেরপুরে তিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 4 =

Contact Us