Home / স্থানীয় খবর / শেরপুরের দুইটি পাবলিক লাইব্রেরী দুই যুগ হলো তালাবদ্ধ

শেরপুরের দুইটি পাবলিক লাইব্রেরী দুই যুগ হলো তালাবদ্ধ

20170114_114533শেরপুর নিউজ ২৪ ডট নেট : বগুড়ার শেরপুর উপজেলার দুটি পাবলিক লাইব্রেরী দুই যুগ হলো তালাবদ্ধ অবস্থায় পড়ে আছে। ফলে নতুন প্রজন্মের মধ্যে গ্রন্থ পাঠের অভ্যাস গড়ে উঠছে না, তারা মাদকের নেশা ছাড়াও নানা অসামাজিক কার্যকলাপে ছড়িয়ে পড়ছে।
জানা গেছে, বগুড়ার শেরপুর শহরের বর্তমান উপজেলা পরিষদের পুর্ব পার্শ্বে ১৯১৬ সালে তৎকালীন জমিদারদের প্রচেষ্টায় টাউনকাব পাবলিক লাইব্রেরীর প্রতিষ্ঠা হয়। যাতে তৎকালীন বিট্রিশ ভারতের নানা ঐতিহাসিক গ্রন্থ ও বোদ্ধা পাঠক লেখকের পদচারণা ছিল। গ্রন্থাটিরতে নিয়মিত পাঠকদের আসা যাওয়া ছিল। সরকারী তত্তাবধানে লাইব্রেরীটির কার্যক্রম চলতো। ১৯৯৩ সালে কমিটি গঠন নিয়ে জটিলতা মামলায় রূপ নিলে লাইব্রেরীর কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। দীর্ঘদিনেও লাইব্রেরীটি সর্বসাধারনের জন্য উন্মুক্ত না হওয়ায় পাঠকেরা মুল্যবান গ্রন্থ পাঠ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। লাইব্রেরীটির নৈশপ্রহরী আজাহার উদ্দিন জানান, দুই যুগ হলো লাইব্রেরীটির কোন নিয়মিত কার্যক্রম নেই। আমি বেতনও পাই না। লাইব্রেরীতে কয়েক হাজার বই রয়েছে বলে তিনি জানান।
শেরপুর টাউনকাব পাবলিক লাইব্রেরীটি শতবর্ষ পুর্বে সেখানে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল বর্তমানে সেখানে গড়ে উঠেছে একটি মহিলা মহাবিদ্যালয়। কয়েক বছর পুর্বে লাইব্রেরীটি নতুন করে একটি পাকা ভবনে স্থানান্তরিত করা হলেও তা এখনো চালু হয়নি।
অপরদিকে ১৯৩৫ সালে উপজেলার সীমাবাড়ী ইউনিয়নের সীমাবাড়ী বাজারে তৎকালীন জমিদার শচীন্দ্রনাথ চৌধুরীর প্রচেষ্টায় সর্বসাধারনের পাঠাভ্যাস গড়ে তোলার জন্য গড়ে তোলা হয় সীমাবাড়ীী পাবলিক লাইব্রেরী। যার একটি আধাপাকা ঘর এখন পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। বই পত্রের কোন হদিস নেই। লাইব্রেরীর জায়গা জনৈক ব্যক্তি অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকার মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল ইসলাম মজনু জানান, বিট্রিশ আমলে গড়ে ওঠা পাবলিক লাইব্রেরীতে পাকিস্তান আমলে নিয়মিত পড়াশোনা হতো। ১৮৮৬ সালের দিকে এর জন্য আধাপাকা ঘর নির্মাণ করা হয়।
কিন্তু ১৯৯৮ সালের বন্যায় তিগ্রস্থ হবার পর লাইব্রেরীটি আর চালু হয়নি। বর্তমানে এর একটি ঘর পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এ ব্যাপারে সীমাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান গৌরদাস রায় চৌধুরী জানান, সীমাবাড়ীতে পাবলিক লাইবেরীকে কেন্দ্র করে একসময় সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক চর্চা সমৃদ্ধ হয়ে উঠেছিল। কিন্তু লাইব্রেরীটি দুই যুগ হলে বন্ধ থাকায় এসব প্রগতিশীল চিন্তা ও চেতনার চর্চা বন্ধ হয়ে গেছে।
শেরপুর উপজেলায় বিট্রিশ আমলে গড়ে ওঠা দুটি পাবলিক লাইব্রেরী দুই যুগ হলো তালাবদ্ধ থাকায় যতেœর অভাবে ঐতিহাসিক ও মুল্যবান বই সূমহ বিনষ্ট হচ্ছে এবং নতুন প্রজন্ম বই পড়ার প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছে না। তারা পাঠ্যাভাসে সময় না কাটিয়ে নেশা সহ নানা অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ছে। নতুন প্রজন্মের মাঝে জ্ঞানের শিখা ছড়িয়ে দিতে পাবলিক লাইব্রেরী দুটি চালু করা প্রয়োজন বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। লাইব্রেরী দুটি চালু হলে তা এলাকায় জ্ঞান ও মুক্তবুদ্ধি চর্চা অসামান্য অবদান রাখতে পারে বলে বোদ্ধা মহল মনে করে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান জানান, শেরপুরে দুটি পাবলিক লাইব্রেরী বন্ধ অবস্থায় পড়ে আছে সেটা আমার জানা ছিল না। এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Check Also

শেরপুরে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

শেরপুরনিউজ২৪ডটনেটঃ বগুড়ার শেরপুরে জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। সোমবার (১১ অক্টোবর) …

Contact Us