Home / পড়াশোনা / জাতীয়করনের জন্য ২৭৬ টি কলেজের অর্থ মন্ত্রনালয়ের সম্মতি

জাতীয়করনের জন্য ২৭৬ টি কলেজের অর্থ মন্ত্রনালয়ের সম্মতি

জাতীয়করনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন প্রাপ্ত ২৯৩ টি কলেজের মধ্যে ২৭৬টি কলেজকে জাতীয়করণের লক্ষে ও শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন রাজস্বখাতে স্থানান্তরের জন্য অর্থমন্ত্রী জনাব আবুল মাল আব্দুল মুহিত এই অনাপত্তি প্রদান করেন। ইতি পূর্বে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর মহপরিচালক উক্ত কলেজগুলোর আর্থিক সংশ্লেষ শিক্ষামন্ত্রনালয়কে স্বচিত্র প্রতিবেদন আকারে উপস্থাপন করেন। শিক্ষামন্ত্রনালয় অর্থমন্ত্রনালয়কে পাঠানো কলেজগুলোর মধ্যে ২৭৬টি কলেজের অর্থ ছাড়ের অনাপত্তি পত্র প্রদান করেন। বিভিন্ন প্রশাসনিক ত্রুটি, অভিযোগ ও মামলা থাকায় বাকী ২৭টি কলেজের অনাপত্তি প্রদান করা হয়নি। তবে এগুলোও পর্যায়ক্রমে অনুমোদন দেওয় হবে। ব্যায় ও নিয়ন্ত্রন শাখার উপ সচিব জনাব সুলেখা রানি বসু বলেন, জাতীয়করনের প্রক্রিয়ায় থাকা কলেজগুলোতে এমপিওভূক্ত ১২ হাজার ৪৫৩জন শিক্ষক কর্মচারীর জন্য অতিরিক্ত খরচ হবে ৪৫ কোটি ২৮ লাখ ৯৮ হাজার ৭৮৬ টাকা। আর এমপিও বর্হিভূত (ডিগ্রী তৃতীয় পোস্ট,অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সে নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষক) শিক্ষক-কর্মচারী আছেন ৪৪৬৫ জন এদের জন্য খরচ হবে ১৭৪ কোটি ৬৪ লাখ ৬৩ হাজার ৮৬২ টাকা । তিনি আরো বলেন শিক্ষামন্ত্রনালয় কর্তৃক প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিট অফ গিফট সম্পন্ন হলে নিয়ম অনুযায়ী মাননীয় রাষ্ট্রপ্রতি কর্তৃক আদেশে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় জিও জারি করবেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন দেওয়া ২৯৩টি কলেজের মধ্যে ১৯৭টি অনার্স কলেজ আছে। যে গুলোতে কর্মরত ননএমপিও শিক্ষকদেরও অর্থমন্ত্রনালয়ের আর্থিক সংশ্লেষ দেওয়ায় বাংলাদেশ বেসরকারি কলেজ আনার্স- মাস্টার্স শিক্ষক পরিষদের সভাপতি জনাব কাজী ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক জনাব কাজী কামরুজ্জামান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। এই অর্জন শিক্ষক পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সহ সকল ননএমপিও ডিগ্রী, অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সের নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকদের। এতে আনন্দিত হবে হাজার শিক্ষক পরিবার।
সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ২০১৩ সালের পূর্বে জাতীয়করণের জন্য শুধু এমপিওভূক্ত শিক্ষকগনই বিবেচনায় আসতেন। শিক্ষক পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি জনাব কাজী ফারুকের অক্লান্ত পরিশ্রম ও শিক্ষক পরিষদের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দের উৎসাহে সর্বপ্রথম ২০১৪ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ননএমপিও শিক্ষকদের সম্মতি দিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়কে পত্র পাঠান। জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় ননএমপিও শিক্ষকদের জাতীয়করণের জন্য মোট ৮টি বিষয় জানতে চান। দীর্ঘ ১১ মাস ঘুরে উক্ত জবাব গুলোর মধ্যে দিয়ে ননএমপিও (ডিগ্রী,অনার্স,মাস্টার্স) সর্বপ্রথম পদ সৃষ্টি হয়। অর্থ মন্ত্রনালয়ও ননএমপিও শিক্ষকদের ব্যপারে ২০১৫ সালে মোট ৬টি বিষয়ের উপরে জানতে চান। দীর্ঘ নয় মাস পরিশ্রম করে অর্থমন্ত্রনালয়কে উক্ত বিষয়ে অবহিত করা হয়।
২০১৬ সালে স্কেল ভেটিংএ গেলে ননএমপিও শিক্ষকদের ব্যপারে আবারো ৬টি বিষয়ের উপরে জানতে চান। শিক্ষক পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের দীর্ঘ ৮ মাস পরিশ্রম করে তারও জবাব নিয়ে আসেন।
অর্থাৎ ননএমপিও শিক্ষকদের ব্যপারে (ডিগ্রী,অনার্স,মাস্টার্স) মোট তিনবার কোয়ারির জবাব দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ গুছিয়ে এনে আজ একটি ইতিহাস রচিত হলো।

কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আশা করেন, জাতীয়করণের আওতার বাইরে থাকা ননএমপিও অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সের শিক্ষকদের অবিলম্বে এই বাজেটেই এমপিও ভুক্ত করা হবে। একই সাথে সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে স্বতন্ত্র পে-স্কেল দিয়ে জাতীয়করণ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আরেকটি ইতিহাস সৃষ্টি করবেন।

Check Also

এসএসসি পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর, এইচএসসি ২ ডিসেম্বর

শেরপুর ডেস্কঃ এসএসসি পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর ও এইচএসসি ২ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে। দেড় …

Contact Us