Home / স্থানীয় খবর / শেরপুরে ৩৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই

শেরপুরে ৩৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই

imagesশেরপুর নিউজ ২৪ ডট নেট: বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ৩৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই। ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন হচ্ছে না এবং নতুন প্রজন্ম ভাষা আন্দোলন সর্ম্পকে জানতে পারছে না।
জানা গেছে, শেরপুর উপজেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে ১৩৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ সর্ব মোট ১৪৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এছাড়া কিন্ডারগার্ডেন (কেজি স্কুল) রয়েছে ১১০টি। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ুম জানিয়েছেন, উপজেলার ২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার রয়েছে। এগুলো হলো বড়াইদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাচঁদেউলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বাকিগুলোতে কোন শহীদ মিনার নেই বলে তিনি জানান। এছাড়া কেজি স্কুলের মধ্যে দশমাইলের নর্থবেঙ্গল আনোয়ারা ইন্টা: স্কুলে শহীদ মিনার রয়েছে।
উপজেলায় মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল রয়েছে ৪৮টি। এর মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে- শেরপুর ডিজে হাইস্কুল,ছোনকা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, কানাইকান্দর হাইস্কুল, জামুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, দোয়ালসাড়া মডেল হাইস্কুল,বিশ্বা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়,কচুয়াপাড়া হাইস্কুল, ভবানীপুর উচ্চ বিদ্যালয়, কল্যাণী উচ্চ বিদ্যালয়, সীমাবাড়ী এসআর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও বেটখৈর হাইস্কুলে। বাকি ৩৭টি বিদ্যালয়ে কোন শহীদ মিনার নেই। শেরপুরে ৫টি আলিম মাদ্রাসা সহ সর্বমোট
মাদ্রাসা রয়েছে ৪২টি এর মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে শুধুমাত্র শেরপুর শহীদিয়া কামিল স্নাতকোত্তর মাদ্রাসায়। বাকিগুলোতে কোন শহীদ মিনার নেই। শেরপুরে ৬টি কলেজ এবং ৪টি স্কুল এন্ড কলেজ রয়েছে এর মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে- শেরপুর কলেজ, জয়লা জুয়ান ডিগ্রী কলেজ, রহিমা নওশের আলী ডিগ্রী কলেজ, পল্লী উন্নয়ন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ,সীমাবাড়ী মহিলা কলেজ ও সামিট স্কুল এন্ড কলেজ। বাকিগুলোতে কোন শহীদ মিনার নেই। এছাড়া ৬টি টেকনিক্যাল এন্ড বিএম কলেজ থাকলেও একটিতেও কোন শহীদ মিনার নেই। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান জানান, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় সমুহের মধ্যে শহীদ মিনার আছে কিনা এ ব্যাপারে তথ্য চাওয়া হয়েছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, শেরপুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ৩৫৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাত্র ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার রয়েছে। ২/১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্মাণাধীন রয়েছে। জানা যায়, স্বাধীনতার পর শেরপুর কলেজের উত্তর পুর্ব কোণায় প্রথম শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়। সেখানে ২১ শে ফেব্রুয়ারীর প্রথম প্রহরে শেরপুরের সর্বস-রের হাজারো মানুষ ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করতো। পরবর্তীতে শহীদ মিনারটি ভেঙ্গে ফেলার পর ২০১৩ সালে কলেজের অভ্যন-রণ চত্বরে নতুন করে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়। ২০১২ সালে শেরপুরে মাদ্রাসার মধ্যে একমাত্র শহীদ মিনার শেরপুর শহীদিয়া কামিল মাদ্রাসায় নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করা হয়। কবি সাকিল মাহমুদ জানান, মহান ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানাতে ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ জরুরী।
শেরপুর শহীদিয়া কামিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাও: হাফিজুর রহমান জানান, প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ নিমার নির্মাণের জন্য সরকারী ভাবে অর্থ বরাদ্দ দিলে এই কাজ অনেকটা সহজ হবে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, শেরপুর উপজেলায় যেসব প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। তার অধিকাংশেরই শহীদ মিনার নিমার্ণের কোন উদ্যোগ নেই। এসব প্রতিষ্ঠানে ভাষার মাসে ভাষা শহীদদের প্রতি কোন শ্রদ্ধা জানানোর উদ্যোগও গৃহীত হয় না। ফলে নতুন প্রজন্ম ভাষা আন্দোলনের গৌরবময় ইতিহাস জানাতে পারছে না এবং এদের মধ্যে বাংলা ভাষার প্রতি যথেষ্ট ভালবাসার জন্ম হচ্ছে না। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান জানান, উপজেলায় ৩৩৮টি প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকার বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে বিষয়টি আমি তদন- করে শহীদ মিনার নির্মাণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন করব।

Check Also

শেরপুরে ওএমএস চাল বিক্রি নেই, যাচ্ছে কালোবাজারে

শেরপুর নিউজ২৪ডটনেটঃ খোলাবাজারে ৩০টাকা কেজিতে চাল বিক্রিতে সাড়া নেই বগুড়ার শেরপুরে। অথচ ডিলারদের কারসাজিতে অবিক্রিত …

Contact Us