Home / বগুড়ার খবর / ধুনট / বাবার কোলে চড়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে নাইছ খাতুন

বাবার কোলে চড়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে নাইছ খাতুন

DHUNAT-01ইমরান হোসেন ইমন, ধুনট (বগুড়া) থেকে: ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়। তাই মনে অদম্য ইচ্ছা শক্তি নিয়ে নিরন্তন প্রচেষ্টায় এগিয়ে চলেছে নাইছ খাতুন (১৬)। প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে এবার সে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। বৃহস্পতিবার বগুড়ার ধুনট এনইউ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে বাবার কোলে চড়ে পরীক্ষা দিতে আসতে দেখা যায় তাকে। বাবা কোলে করে নিয়ে এসে বঞ্চে বসিয়ে যান। আবার পরীক্ষা শেষে কোলে করে তাকে নিয়ে বাড়ী ফিরে যান। নাইছ খাতুন বগুড়ার ধুনট উপজেলার চৌকিবাড়ী ইউনিয়নের বহালগাছা গ্রামের দরিদ্র কৃষক নজরুল ইসলামের মেয়ে।
সে বিশ্বহরিগাছা বহালগাছা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে চলতি এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। জন্ম থেকেই তার দুই পা থাকলেও হাঁটতে বা দাঁড়াতে পারে না সে। তাই বাবা ও মায়ের কোলে চড়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে বিদ্যালয়ে যেতে হয় তাকে। এছাড়া ডান হাতটিও অকেজো। তাই বাম হাত দিয়েই লিখতে হয় তাকে। কিন্তু তারপরও হারিয়ে যায়নি তার মনোবল। বাবার কোলে চড়ে এভাবে ২০১৪ সালের জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েও সে জিপিএ ৩.৬৭ পেয়েছিল। আর এভাবেই অদম্য ইচ্ছা শক্তি নিয়ে এগিয়ে চলেছে সে। এক ভাই ও এক বোনের মধ্যে নাইছ খাতুন ছোট। তার বড় ভাই বগুড়া সরকারী আজিজুল হক কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্র। দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেওয়া নাইছ খাতুনের বাবা ছেলের খেলাপড়ার খরচ চলাতেই হিমশিম খাচ্ছেন। কিন্তু তারপরও শারীরিক প্রতিবন্ধি নাইছ খাতুনের লেখাপড়ার খরচও চালিয়ে যাচ্ছেন তার দরিদ্র পিতা।
নাইছ খাতুনের বাবা নজরুল ইসলাম বলেন, জন্ম থেকেই প্রতিবন্ধি নাইছ খাতুনের চিকিৎসার জন্য অনেক চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু অর্থের অভাবে তাকে সুস্থ করা সম্ভব হয়নি। নাইছ কোন বোঝা হয়ে থাকতে চায় না। তাই সে লেখাপড়া করতে চায়। কিন্তু দুই ছেলে-মেয়ের লেখাপাড়ার খরচ চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি। তবে সরকারী কোন সহযোগিতা পেলে তার প্রতিবন্ধি মেয়ের মনের আশা পূরন হবে বলে মনে করছেন তিনি।
প্রতিবন্ধি নাইছ খাতুন জানায়, ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়। তাই মনে ইচ্ছা শক্তি নিয়েই শিক্ষা জীবন শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার বাংলা বিষয়ের পরীক্ষায় ৯০ ভাগ প্রশ্নের উত্তর লিখেছে সে। খেলাপাড়া করে নাইছ খাতুন একজন শিক্ষক হতে চায়।
ধুনট এনইউ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব মশিউর রহমান বলেন, অন্য পরীক্ষার্থীদের চেয়ে প্রতিবন্ধি নাইছ খাতুনকে অতিরিক্ত ১৫ মিনিট বেশি সময় দেওয়া হয়েছিল। পরীক্ষার খাতায় সে ভালই লিখেছে।

Check Also

ধুনটে পুকুর থেকে বৃদ্ধের ভাসমান লাশ উদ্ধার

শেরপুর ডেস্কঃ বগুড়ার ধুনট উপজেলায় নিখোঁজের ৭২ঘন্টা পর মোনছের আলী সরকার নামের ৭৫ বছর বয়সী …

Contact Us